একনজরে Android 11


অনেক অপেক্ষা ও আক্ষেপের পর এন্ড্রয়েড এর নতুন ভার্সন হিসেবে Android 11 ও Android 11 Go এ দুটি আমরা পেয়েছি । যদিও বর্তমানে একটু দামী সেটেই কেবলমাত্র Android 11 ব্যবহার করছে । কিছুদিন পর মিড লেভেলের ফোনেও পাওয়া যাবে এ সুবিধা । আর কমদামি সেটের জন্য রয়েছে Android 11 Go ভার্সনটি । আজকে আমরা দেখবো এই এন্ড্রয়েড ১১ ভার্সনে নতুন কি কি সুযোগ সুবিধা আমরা পাবো । তাহলে চলুন, শুরু করা যাক ।

আসুন দেখে নেই Android 11 এর সুবিধাসমূহ :

• কথোপকথন আগের থেকে সহজ ও দ্রুততর : নতুন এন্ড্রয়েড ১১ ভার্সনে সবধরনের মেসেজ ও চ্যাটের বার্তাগুলো একসাথে, একজায়গায় দেখা যাবে । এমনকি রিপ্লাই বা ডিলিট করার মতো সুবিধাগুলোও পাওয়া যাবে । আপনি যদি আপনার প্রিয় মানুষের মেসেজ বা বার্তা সবসময় ও সবার উপরে দেখতে চান তাহলে "Priority Conversation" অপশন সিলেক্ট করে অনায়াসেই এ কাজটি করতে সক্ষম হবেন । এমনকি স্ক্রিন যদি লক ও হয়ে থাকে তখন‌ও আপনি এর মাধ্যমে মেসেজ বা বার্তাগুলো দেখতে পারেন ।

• আর‌ও দ্রুত মাল্টিটাস্কিং করতে চ্যাট বাবল : "Chat Bubbles" অপশনের সহযোগীতায় আপনি অন্যান্য অ্যাপের উপরে প্রয়োজনীয় চ্যাটকে পিন‌আপ করতে পারবেন । এরফলে আপনি একদম সহজেই মাল্টি-টাস্কিং করতে সক্ষম হবেন ।

• স্মার্ট রিপ্লাই : "স্মার্ট রিপ্লাই" ফিচারের মাধ্যমে যে কোন কথপোকথনের জন্য সাজেস্টেড রেসপন্স পাওয়া যাবে অটোমেটিকভাবে ।

• স্ক্রিন রেকর্ডার : "স্ক্রিন রেকর্ডার" পাওয়া যাবে এন্ড্রয়েড ভার্সন ১১ তে ! সম্পূর্ণ বিল্টইন এ স্ক্রীন রেকর্ডার এর ফলে থার্ড পার্টির কোন অ্যাপ ব্যবহারের প্রয়োজন পরবেনা । 

• ভয়েস এক্সেস : গুগলের "ভয়েস এক্সেস" ফিচারটি এখন আরো উন্নত ও দ্রুতগতির হবে । অফলাইনে থাকলেও ভয়েস কমান্ডের মাধ্যমে ব্যবহার করা যাবে ফোনকে ।

• ডিভাইস কন্ট্রোল : "ডিভাইস কন্ট্রোল" ফিচারটির মাধ্যমে সকল ধরনের এন্ড্রয়েড ডিভাইসের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন এক ক্লিকেই । উদাহরণস্বরূপ, আপনার যদি স্মার্টফোন থাকে এন্ড্রয়েড হোম এপ্লাইয়েন্স দ্বারা সুসজ্জিত, যেমন ঘরের দরজার তালা বা আপনার বাড়ির লোক, আপনি এ সবগুলোকেই আপনার এন্ড্রয়েড ১১ ভার্সনের স্মার্টফোনের মাধ্যমেই কন্ট্রোল করতে পারবেন ।

• এপ পারমিশন : নতুন এ এন্ড্রয়েড ভার্সনের ফলে আপনি আপনার Microphone, Camera এবং Location যে অ্যাপস ব্যবহার করতে চায় তাকে ওয়ান টাইম পারমিশন দিয়ে এগুলোকে এক্সেস করার পারমিশন দিতে পারবেন । আরো বিশদভাবে বলতে গেলে, ধরুন আপনি একটি অ্যাপস অনেকদিন ধরে ব্যবহার করছেন না ; সেই অ্যাপটি আপনার Location সম্পর্কে তথ্য নিতে পারবেনা । এমনকি আপনার ক্যামেরা বা মাইক্রোফোন এক্সেস করতে পারবে না । এ্যন্ড্রয়েড অটোমেটিকভাবে পারমিশন রিসেট করে দেবে আর আপনি যদি পরবর্তীতে অ্যাপটি ব্যবহার করেন তখন পারমিশন রিগ্র্যান্ট করলেই হয়ে যাবে ।


Android 11 Go Lite

এন্ড্রয়েড গো ভার্সনটি কেবলমাত্র ১.৫ জিবি থেকে ২ জিবি মেমোরির ফোনে ব্যবহার হবে । Android 10 কেবলমাত্র ১.৫ জিবি র্যাম বা এরচেয়ে কম র্যামের ফোনে ব্যবহার করা গিয়েছে । তাই একথা বলাই যায় যে Android 11 Go ব্যবহার করতে ২ জিবি র্যাম ভালো হবে । এর অন্যতম একটি আপডেট হচ্ছে এটি যে কোন অ্যাপকে Android 10 Go থেকে ১৫% দ্রুতগতিতে শুরু করতে ও চালাতে পারবে । গুগল লেন্সের মাধ্যমে লাইভ ট্রান্সলেশন ও সাপোর্ট করবে এটি ।

তাহলে আমরা দেখতে পেলাম নতুন ধরনের বেশ কিছু সুযোগ-সুবিধা নিয়ে হাজির হয়েছে এন্ড্রয়েড ভার্সন ১১ । এখন অপেক্ষা, কবে এই ভার্সনের একটি সেটের মালিক হ‌ওয়া যাবে সেটার । 

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post